ENGLISH ঢাকাঃ মঙ্গলবার, ২১ আগস্ট ২০১৮, ১২:৪৭

প্রকাশিত : মঙ্গলবার, ১৩ ফেব্রুয়ারী ২০১৮ ০৩:৪৩:০৫ অপরাহ্ন Zoom In Zoom Out No icon

প্রশ্নফাঁস ঠেকাতে সব উদ্যোগই ব্যর্থ

দ্যা ডেইলি ডন

চলতি বছরের এসএসসির সবকটি পরীক্ষার প্রশ্নপত্র ফাঁস হয়েছে। ফেসবুকসহ বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে পরীক্ষার আগে প্রশ্ন ছড়িয়ে দেওয়া হয় । এমনকি ফেসবুকে প্রশ্নপত্রের বিজ্ঞাপনও দেওয়া হয়। এমন পরিস্থিতিতে প্রশ্নপত্র ফাঁস ঠেকাতে সরকার সম্ভাব্য সব ধরনের পদক্ষেপ নিলেও সব উদ্যোগই বিফলে গেছে।

সর্বশেষ প্রশ্নফাঁস ঠেকাতে পরীক্ষা কেন্দ্রের ২০০ মিটারের মধ্যে কারও কাছে মোবাইল ফোন পেলে তাকে গ্রেপ্তার করার  নির্দেশ দেয়া হয়েছে। এ বিষয়ে ব্যবস্থা নিতে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের নির্দেশ দিয়েছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগ। ওই নির্দেশনায় আরো বলা হয়, পরীক্ষা শুরুর ৩০ মিনিট আগে কোনো পরীক্ষার্থীকে কেন্দ্রে প্রবেশ করতে দেওয়া যাবে না।

এর আগে প্রশ্নফাঁসকারীদের ধরিয়ে দিতে পাঁচ লাখ টাকা পুরস্কার ঘোষণাসহ আরো বেশ কিছু পদক্ষেপ নেয়া হয়। তাতেও কোন কাজ হয়নি। ফলে পরীক্ষায় প্রশ্নপত্র ফাঁস ঠেকাতে না পারায় শিক্ষার্থী ও অভিভাবকরা হতাশা ও ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন। অনেকে বলেছে শিক্ষমন্ত্রী এখন পর্যন্ত সাত বিষয়ে ফেল করেছেন। কারন ১ ফেব্রুয়ারি থেকে শুরু হওয়া এই পরীক্ষার সাতটি বিষয়ের প্রশ্নপত্র ফাঁস হয়েছে।  এমনকি প্রশ্নপত্র ফাঁস ঠেকাতে গত রোববার পরীক্ষার দিন আড়াই ঘণ্টা ইন্টারনেট বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। যদিও সোমবার সকালে সেই সিদ্ধান্ত থেকে সরে আসে সরকার।

এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষা সুষ্ঠুভাবে অনুষ্ঠানে গত রোববার ‘জরুরি ব্যবস্থা গ্রহণ সংক্রান্ত’ এক আদেশে মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক (মাউশি) সব বিভাগীয় কমিশনার ও জেলা প্রশাসক (ডিসি) এবং শিক্ষা বোর্ডগুলোর চেয়ারম্যানদের এই নির্দেশ পাঠানো হয়।

প্রশ্নফাঁসের অভিযোগের প্রেক্ষাপটে করণীয় নির্ধারণে গত ৪ ফেব্রুয়ারি কারিগরি ও মাদ্রাসা শিক্ষা বিভাগের সচিব মো. আলমগীরকে প্রধান করে একটি কমিটি করা হয়। গত রোববার ওই কমিটির প্রথম সভায় আলমগীর জানান, প্রশ্নফাঁসে ব্যবহৃত ৩০০ মোবাইল ফোন নম্বর চিহ্নিত করে সেগুলো বন্ধ করে দিয়েছে সরকার। এসব মোবাইল নম্বরের মালিকদের গ্রেপ্তারে পুলিশ অভিযানেও নেমেছে।

এবার প্রথম পরীক্ষা ছিল বাংলা প্রথমপত্রের পরীক্ষা। এদিন পরীক্ষার ২৪ মিনিট আগে পরীক্ষার প্রশ্ন ফাঁস হয়। দ্বিতীয় দিন ৪৫ মিনিট আগে প্রশ্ন পাওয়া যায় ফেসবুকে। পরে ইংরেজি প্রথম পত্রের প্রশ্ন ছড়িয়ে দেওয়া হয়  হোয়াটসঅ্যাপে পরীক্ষার দুই ঘণ্টা আগে। ইংরেজি দ্বিতীয়পত্রের পরীক্ষা শুরু হওয়ার আগেই সকাল ৯টা ২০ মিনিট থেকে ৯টা ২৪ মিনিটের মধ্যে একাধিক ফেসবুক গ্রুপে ‘খ’ সেটের প্রশ্নফাঁস হয়। ইসলাম ও নৈতিক শিক্ষার প্রশ্নফাঁস হয় পরীক্ষা শুরুর এক ঘণ্টা আগে। প্রশ্নফাঁসের ধারাবাহিকতায় গণিতের প্রশ্নপত্রও ফাঁস হয়। প্রশ্নফাঁসের সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগে ১৪ জনকে গ্রেপ্তার করেছে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ। 

 

আরো খবর

    ট্যাগ নিউজ

    সর্বশেষ খবর