ENGLISH ঢাকাঃ শনিবার, ২১ জুলাই ২০১৮, ০৯:১৩

প্রকাশিত : মঙ্গলবার, ১৩ মার্চ ২০১৮ ০৩:০১:১৪ পূর্বাহ্ন Zoom In Zoom Out No icon

আগুনে নিঃস্ব ২০ হাজারেরও বেশি মানুষ

দ্যা ডেইলি ডন

আগুনে সব হারিয়ে নিঃস্ব রাজধানীর মিরপুর ১২ নম্বর বস্তির ২০ হাজারেরও বেশি মানুষ। কোথায় হবে এতো মাথা গোঁজার ঠাঁই জানে না কেউ। কারও সহযোগিতা পাওয়ার আশাও করছে না ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারগুলো।
নির্মাণ শ্রমিক আফসার আলী। দীর্ঘদিন ধরে অনেক কষ্টে জমিয়েছিলেন ২০ হাজার টাকা। ৪০ কেজি চাল কিনে রেখেছিলেন সামনের দিনে চলার জন্যে। চার ঘণ্টার আগুনে পুড়ে ছাই আফসারের জীবনের সমস্ত সঞ্চয়। ছাইয়ের মধ্যেই হাতড়ে বেড়াচ্ছেন যদি কিছু পাওয়া যায়।

সোহেল নামের এই গার্মেন্টস কর্মীর তো মাথায় হাত। স্বামী-স্ত্রী মিলে বাড়ি যাবেন, তাই জমিয়েছিলেন ৫০ হাজার টাকা। এক নিমেষে সব স্বপ্ন পুড়ে অঙ্গার।

আফসার-সোহেলের মতো বস্তির হাজারও মানুষ এখন সবকিছু হারিয়ে খোলা আকাশের নিচে। আগুনে সব হারানোর চেয়ে বড় চিন্তা ভবিষ্যত। কোথায় থাকবেন, খাবেনই বা কি- আগুনের শিখা নিভে যাওয়ার আগেই শুরু হয়েছে সে যুদ্ধ।

রোববার মধ্যরাতে, সব যখন শুনশান-নিরব, তখনই রাজধানীর পল্লবীর ইলিয়াস মোল্লা বস্তিতে আগুনে পুড়ে গেছে কয়েক হাজার ঘর। রাত ৩টার দিকে বস্তির দক্ষিণ পাশে আগুন লাগে। বাতাস আর দাহ্য পদার্থের কারণে, আগুন ছড়িয়ে পড়ে দ্রুত।  কিছু বুঝে ওঠার আগেই, জীবন বাঁচাতে দিকবিদিক ছুটতে থাকে বস্তিবাসী। তাদের আর্তনাদে ছুটে আসে আশপাশের মানুষজনও। নিজের সম্পদ বাঁচানোর চেষ্টা করছিলেন কেউ কেউ। অনেকে চেষ্টা করেন আগুন নেভাতে। আগুনে পুরো বস্তিই পরিণত হয়েছে ধ্বংস্তূপে। হাজারো মানুষের সাজানো সংসার পুড়ে ছাই। সব হারিয়ে এখন মাথা গোজার ঠাঁই খুঁজে বের করার চেষ্টা সবার।  বস্তিবাসীর অভিযোগ, সময়মতো আসেনি ফায়ার সার্ভিস।

 ভোর সাড়ে ৪টার দিকে কাজ শুরু করে ফায়ার সার্ভিস। প্রায় সাড়ে চার ঘণ্টা ধরে, ফায়ার সার্ভিসের ২০টি ইউনিট ও বস্তিবাসীর চেষ্টায় নিয়ন্ত্রণে আসে আগুন।কিন্তু, ততক্ষণে সব শেষ। এ ঘটনায় ফায়ার সার্ভিসের উপপরিচালককে প্রধান করে ৩ সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠিত হয়েছে। 

বস্তিবাসী বলছে, ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ কয়েক কোটি টাকা। তাদের ক্ষতিপূরণের আশ্বাস দিয়েছেন স্থানীয় সংসদ সদস্য। আগুনের ঘটনায় দ্রুত তদন্তের কথা জানিয়েছে ফায়ার সার্ভিস।

loading...

আরো খবর

    ট্যাগ নিউজ

    loading...

    সর্বশেষ খবর