ENGLISH ঢাকাঃ রোববার, ২১ অক্টোবর ২০১৮, ০১:৪৯

প্রকাশিত : মঙ্গলবার, ১৪ আগস্ট ২০১৮ ০৯:২৯:৪১ অপরাহ্ন Zoom In Zoom Out No icon

নোংরা পানি থেকে সিল্ক শাড়ি!

দ্যা ডেইলি ডন

মুনিরাগুর নলকূপটা শুকিয়ে যাওয়ার কারণে সবজি ক্ষেতটাই শুকিয়ে গেলো। সেখানে সবজি চাষ বন্ধ। তাই বলে শুকনো ক্ষেত কি অকেজো হয়ে যায়? যায় না। এখন তিনি এখানে মালবেরি নামের এক উদ্ভিদের চাষ করছেন। সিল্ক উৎপাদনে এই উদ্ভিদের ভূমিকা আছে। ডোবা কিংবা সুয়ারেজের ময়লা পানি দিয়েই এসব ক্ষেতে সেচ দেয়া হচ্ছে।  

ভারতের অনেক স্থানেই পানির বড়ই অভাব। যেমনটা হয়েছে ব্যাঙ্গালোরের প্রত্যন্ত অঞ্চলে।ছোটকাল থেকেই মনিরাগু চাষবাস করেন। এখন তার বয়স ৪৫। এখন চাষের পানির অভাবে ভুগছেন। নিজের কূপ শুকিয়ে যাওয়ার পর নিরুপায় হয়ে অন্যের জমি চাষ করেছেন ৫ বছর। বর্ষাকালে কিছু পানি সুয়ারেজ লাইনে মিলতো। এই পানি দিয়েই চাষ করা হতো। কিন্তু ময়লা পানিতে সবজি চাষ ঝুঁকিপূর্ণ। এসব পানিতে জীবাণু থাকে এবং তা ফসলের ক্ষতি করে।
সিল্কওয়ার্মকে খাওয়ানো হয় মালবেরি উদ্ভিদ। এটা খেয়ে তারা যে তন্তুর গুটি উৎপাদন করে তা সংগ্রহ করা হয়। চরকায় ঘুরিয়ে এসব গুটি থেকেই তৈরি হয় সিল্কের তন্তু। এই সিল্ক থেকেই তৈরি হয় শাড়ি।

মুনিরাগুর এই উদ্ভাবনী কৃষিতে মুগ্ধ অনেকেই। তার মতো করে পানি সংকটে ভোগা কৃষকরা চাষবাস করলে পানির অভাব থাকবে না। অর্থাৎ, পানির এমন ব্যবহার ঘটবে না যা বিশুদ্ধ পানির অভাব ঘটায়।

আমাদের দেশেরও পানির সংকট রয়েছে। মাটির গভীরে পানির স্তর ক্রমশ কমতির দিকে। আমাদের কৃষকদের জন্যে মুনিরাগু হতে পারেন অনন্য দৃষ্টান্ত।

আরো খবর

    ট্যাগ নিউজ