ENGLISH ঢাকাঃ বুধবার, ১৯ ডিসেম্বর ২০১৮, ০৭:৪২

প্রকাশিত : বুধবার, ২৫ জুলাই ২০১৮ ০৭:০১:১৫ অপরাহ্ন Zoom In Zoom Out No icon

বাংলাদেশে ফাইভ-জি চালু

দ্যা ডেইলি ডন

ডিজিটাল বাংলাদেশ নির্মাণের ধারাবাহিকতায় গত ফেব্রুয়ারিতে আনুষ্ঠানিকভাবে দেশে ফোর জি সেবা চালু হয়। এবার বাংলাদেশে পরীক্ষামূলকভাবে পঞ্চম প্রজন্মের মোবাইল নেটওয়ার্ক ফাইভ জি চালু হয়েছে।  বুধবার রাজধানীর একটি হোটেলে ‘ফাইভ-জি’ সেবার পরীক্ষামূলক কার্যক্রম উদ্বোধন প্রধানমন্ত্রীর আইসিটিবিষয়ক উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয়।

উদ্বোধন শেষে সজীব ওয়াজেদ জয় বলেন, ডিজিটাল বাংলাদেশ নির্মাণের ধারাবাহিকতায় সরকার এবার ফাইভ জি সেবা চালু করায় একেবারে কাছাকাছি পৌঁছে গেছে।


আইসিটি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক বলেন,‘অনেকেই হয়তো প্রশ্ন করতে পারেন, মাত্র ফেব্রুয়ারিতে ফোরজি চালু হয়েছে তাহলে আজকে কেন ফাইভ-জি সামিট? সেখানে একটাই উত্তর- আওয়ামী লীগ সময়ের চেয়ে আগে চিন্তা করে। বঙ্গবন্ধু অনেক দূরে দেখতে পেতেন। শেখ হাসিনা সময়ের চেয়ে আগে চিন্তা করেন। সজীব ওয়াজেদ জয় সময়ের চেয়ে আগে পরিকল্পনা করেন।

তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধু যখন ১৯৪৯ সালে আওয়ামী লীগ প্রতিষ্ঠা করেন তখন কেউ চিন্তাও করতে পারেনি যে আমাদের ওপর উর্দুকে রাষ্ট্রভাষা চাপিয়ে দেয়া হতে পারে। কিংবা বাংলাদেশের মানুষের ওপরে শোষণ নেমে আসতে পারে। কিন্তু বঙ্গবন্ধু তার দূরদর্শিতা দিয়ে আওয়ামী লীগ প্রতিষ্ঠা করেছিলেন, ছাত্রলীগ প্রতিষ্ঠা করেছিলনে। ভাষা আন্দোলনের মধ্য দিয়ে রাষ্ট্রভাষা বাংলা অর্জন করেছিলেন এবং ত্রিশ বছর আন্দোলন সংগ্রাম করে একটি নিরস্ত্র জাতিকে মুক্তিযুদ্ধের জন্য প্রস্তুত করতে পেরেছিলেন।

আইসিটি প্রতিমন্ত্রী আরও বলেন, ১৯৭৫ সালের ১৫ জুন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব বাংলাদেশের ইতিহাসে প্রথমবার আন্তর্জাতিক টেলিকমিউনিকেশনে সংযুক্ত হওয়ার জন্য বেতবুনিয়াতে স্যাটেলাইটের আর্থ স্টেশন স্থাপন করেছিলেন। তার চার দশক পর জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে এবং সজীব ওয়াজেদ জয়ের সুপরামর্শে আমরা গত ১১ মে মহাকাশে বঙ্গবন্ধুর নামে স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণ করেছি।

উদ্বোধনী এ অনুষ্ঠানে ডাক টেলিযোগাযোগ ও তথ্য-প্রযুক্তি মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার, আইসিটি প্রতিমন্ত্রী জুনায়েদ আহমেদ পলক, বিটিআরসির সচিব শ্যাম সুন্দর শিকদার, রবির এমডি ও সিইও মাহতাব উদ্দিন, হুয়াওয়ে বাংলাদেশের সিইও ঝ্যাং জেনজুন উপস্থি ছিলেন।

ফাইভ-জি সেবার পরীক্ষামূলক কার্যক্রম শুরু হলেও এখনই ভোক্তা পর্যায়ে ব্যবহার করা যাবে না। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের মাধ্যমে বাংলাদেশে ফাইভ-জি’র পরীক্ষামূলক সংযোগ চালু হলো। এই সংযোগ শুধু ফাইভ-জি কার্যক্রমের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট সরকারি-বেসরকারি সংস্থা ও প্রতিষ্ঠানগুলো ব্যবহার করতে পারবে।

গত ফেব্রুয়ারিতে চার মোবাইল ফোন অপারেটরকে ফোর-জি সেবার লাইসেন্স দেওয়ার মাধ্যমে দেশে এ সেবার যাত্রা শুরু হয়। এখন দেশের বিভিন্ন স্থানে উচ্চগতির এই সেবা সুবিধা নিতে পারছেন গ্রাহকরা।

 

আরো খবর

    ট্যাগ নিউজ

    সর্বশেষ খবর